৬.চলাচলের পথ

৬.১ | সার্বজনীনগম্য স্থাপনার সকল সার্বজনীনগম্য অংশ একটি সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথ দ্বারা সংযুক্ত হয়ে সকল মানুষের বাধাহীন চলাচল নিশ্চিত করবে।

 

৬.২ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের সকল দিক পরিবর্তন সুনির্দিষ্ট ভাবে দিক নির্দেশক চিহ্ন দ্বারা চিহ্নিত থাকতে হবে এবং চলাচলের পথ থেকে সহজে ও স্পষ্ট ভাবে দেখা যায় এমন স্থানে অবস্থিত হবে।

 

পথের দৈর্ঘ্য

 

৬.৩ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের দৈর্ঘ্য একটানা ৩০ মিটার (প্রায় ৯৮ ফিট) পর্যন্ত হতে পারবে। এর চাইতে বেশি দৈর্ঘ্যের পথের ক্ষেত্রে, প্রতি ৩০ মিটার দূরত্বের মধ্যে অন্তত একটি সার্বজনীনগম্য বসার ব্যবস্থা থাকতে হবে। বসার ব্যবস্থাটি খোলা আকাশের নিচে হলে ছাউনি দেয়া বসার ব্যবস্থা অধিক গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

 

পথের প্রস্থ

 

৬.৪ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের ন্যূনতম বাধামুক্ত প্রস্থ ১২০০ মিলিমিটার (প্রায় ৪ ফিট) হতে হবে।

 

৬.৫ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের বাধামুক্ত প্রস্থ ১৫০০ মিলিমিটার (প্রায় ৫ ফিট) এর কম হলে প্রতি ৩০ মিটার (প্রায় ৯৮ ফিট) দূরত্বের মধ্যে অন্তত একটি ১৫০০ মিলিমিটার (প্রায় ৫ ফিট) দৈর্ঘ্য ও ১৫০০ মিলিমিটার (প্রায় ৫ ফিট) প্রস্থ বিশিষ্ট বাধামুক্ত খালি জায়গা থাকতে হবে।

 

৬.৬ | সার্বজনীনগম্য চেক-ইন বা চেক আউট এর জন্য নির্ধারিত একমুখী চলাচলের পথের ন্যূনতম বাধামুক্ত প্রস্থ ৯০০ মিলিমিটার (প্রায় ৩ ফিট) হতে পারবে।

 

পথের উচ্চতা

 

৬.৭ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের ন্যূনতম বাধামুক্ত উচ্চতা ২০০০ মিলিমিটার (প্রায় ৮০ ইঞ্চি) হতে হবে।

 

৬.৮ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথ সংলগ্ন কোন স্থানের উচ্চতা ২০০০ মিলিমিটার (প্রায় ৮০ ইঞ্চি) এর চাইতে কম হলে, গার্ড রেইল ব্যবহার করে চলাচলের পথ ও স্থানটির মাঝে বাধা সৃষ্টি করতে হবে। গার্ড রেইলটির নিচের প্রান্ত মেঝে থেকে সর্বোচ্চ ৫৮০ মিলিমিটার (প্রায় ২৩ ইঞ্চি) উঁচুতে অবস্থান করতে পারবে।

Asset 15_600x.png

চিত্র ৬.১ গার্ড রেইলের ব্যবহার

পথে তলের পরিবর্তন

 

৬.৯ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথে বিভিন্ন উচ্চতায় অবস্থিত মেঝের তল সমূহ সংযুক্ত করার জন্য মেঝের উচ্চতার পার্থক্যের ভিত্তিতে সার্বজনীনগম্য স্লোপ, সার্বজনীনগম্য র‍্যাম্প, বা সার্বজনীনগম্য লিফট ব্যবহার করতে হবে।

 

৬.১০ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের মেঝের দুইটি তলের উচ্চতার পার্থক্য ৭৫ মিলিমিটার (প্রায় ৩ ইঞ্চি) বা তার কম হলে, তল দুইটি সংযুক্ত করতে সর্বোচ্চ ১:৮ অনুপাতের সুষম ঢাল ও ৬০০ মিলিমিটার (প্রায় ২ ফিট) আনুভূমিক দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট সার্বজনীনগম্য স্লোপ ব্যবহার করতে হবে। মেঝের তল দুইটির উচ্চতার পার্থক্য ৭৫ মিলিমিটার (প্রায় ৩ ইঞ্চি) এর চাইতে বেশি থেকে ১৫০ মিলিমিটার (প্রায় ৬ ইঞ্চি) পর্যন্ত হলে, তল দুইটি সংযুক্ত করতে সর্বোচ্চ ১:১০ অনুপাতের সুষম ঢাল ও ১৫০০ মিলিমিটার (প্রায় ৫ ফিট) আনুভূমিক দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট সার্বজনীনগম্য স্লোপ ব্যবহার করতে হবে। মেঝের তল দুইটির উচ্চতার পার্থক্য ১৫০ মিলিমিটার (প্রায় ৬ ইঞ্চি) এর চাইতে বেশি হলে, তল দুইটি সংযুক্ত করতে সর্বোচ্চ ১:১২ অনুপাতের সুষম ঢাল ও ৯০০০ মিলিমিটার (প্রায় ৩০ ফিট) আনুভূমিক দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট সার্বজনীনগম্য র‍্যাম্প ব্যবহার করতে হবে। তলের যেকোনও উচ্চতার পার্থক্যের জন্য সার্বজনীনগম্য লিফট ব্যবহার করা যাবে।

ছক ৬.১ : তলের উচ্চতা পরিবর্তনের সাথে ঢালের পরিবর্তন

৬.১১ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথে দুইটি ভিন্ন উচ্চতায় অবস্থিত মেঝের তলের মধ্যে সংযোগ স্থাপনকারী সার্বজনীনগম্য র‍্যাম্পের আনুভূমিক দৈর্ঘ্য ৯০০০ মিলিমিটার (প্রায় ৩০ ফিট) অতিক্রম করলে, তল দুইটি সংযোগ করতে শুধুমাত্র র‍্যাম্পের পরিবর্তে, র‍্যাম্প ও সার্বজনীনগম্য সিঁড়ি উভয়ের ব্যবস্থা থাকা অধিক গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

 

৬.১২ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথে অবস্থিত সর্বোচ্চ ১৫০ মিলিমিটার (প্রায় ৬ ইঞ্চি) উচ্চতা বিশিষ্ট সার্বজনীনগম্য স্লোপের সম্পূর্ণ পৃষ্ঠতল, অথবা স্লোপের উপরের ও নিচের প্রান্ত সংলগ্ন মেঝেতে ঢালু তলের সম্পূর্ণ প্রস্থ জুড়ে বিদ্যমান ৩০০ মিলিমিটার (প্রায় ১ ফুট) চওড়া দুইটি অংশ, পারিপার্শ্বিকের সাপেক্ষে আলাদা করে বোঝা যায় এমন রঙের হবে।

Asset 24_600x.png

চিত্র ৬.২ স্লোপে রঙের ব্যবহার

মেঝেতে সূচকের ব্যবহার

 

৬.১৩ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের দিক এবং ব্যাপ্তি নির্দেশ করতে মেঝের সম্পূর্ন দৈর্ঘ্য জুড়ে চলাচলের দিকের সাথে সমান্তরালে ৩০০ মিলিমিটার (প্রায় ১ ফুট) চওড়া দিক নির্দেশক সূচক থাকতে হবে।

 

৬.১৪ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের দিক পরিবর্তনের স্থলে অথবা পথ সংলগ্ন ভিন্ন উচ্চতা বিশিষ্ট মেঝের তল, বাধা দানকারী বস্তু, যানবাহনের রাস্তা, বা গন্তব্য স্থলের অভিমুখে চলাচলের পথের মেঝেতে সতর্কতা সূচক ব্যবহার করতে হবে।

Asset 10_600x.png

চিত্র ৬.৩ মেঝেতে সতর্কতা ও দিক নির্দেশক সূচকের ব্যবহার

পথ সংলগ্ন বাধা

 

৬.১৫ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথে বা পথের পাশে অবস্থিত বাধা দানকারী বস্তুর কোনও অংশই চলাচলের পথের ন্যূনতম বাধামুক্ত প্রস্থ বা উচ্চতার ভিতরে আসতে পারবে না। তবে পথের মধ্যে পোস্ট, বোলার্ড বা খাম্বা জাতীয় খাড়া বাধা দানকারী কোনও বস্তর অবস্থান অনিবার্য হলে, বাধার পাশে ন্যূনতম ৯০০ মিলিমিটার (প্রায় ৩ ফিট) প্রশস্ত পথ নিশ্চিত করতে হবে।

 

৬.১৬ | একটি পোস্ট বা খাম্বার মাধ্যমে মুক্ত ভাবে দাঁড়িয়ে থাকা কোনও বস্তু বা বাধা, সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথে বা পথের পাশে মেঝে থেকে ২০০০ মিলিমিটার (প্রায় ৮০ ইঞ্চি) উচ্চতার মধ্যে অবস্থিত হলে, পোস্ট বা খাম্বা থেকে বস্তু বা বাধাটি চলাচলের পথের দিকে সর্বোচ্চ ৩০০ মিলিমিটার (প্রায় ১ ফুট) পর্যন্ত বের হয়ে আসতে পারবে। তবে বস্তুর বা বাধার নিচের প্রান্তটি অবশ্যই মেঝে থেকে সর্বোচ্চ ৫৮০ মিলিমিটার (প্রায় ২৩ ইঞ্চি) উচ্চতার মধ্যে থাকবে হবে এবং বস্তু বা বাধার কোনও অংশই চলাচলের পথের ন্যূনতম বাধামুক্ত প্রস্থের ভিতরে আসতে পারবে না।

 

৬.১৭ | ৩০০ মিলিমিটার (প্রায় ১ ফুট) এর চাইতে বেশি দূরত্বে অবস্থিত দুইটি পোস্ট বা খাম্বার মাধ্যমে মুক্ত ভাবে দাঁড়িয়ে থাকা কোনও বস্তু বা বাধা, সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথে বা পথের পাশে মেঝে থেকে ২০০০ মিলিমিটার (প্রায় ৮০ ইঞ্চি) উচ্চতার মধ্যে অবস্থিত হলে, বস্তুর বা বাধার নিচের প্রান্তটি অবশ্যই মেঝে থেকে সর্বোচ্চ ৫৮০ মিলিমিটার (প্রায় ২৩ ইঞ্চি) উচ্চতার মধ্যে থাকবে হবে এবং বস্তু বা বাধার কোনও অংশই চলাচলের পথের ন্যূনতম বাধামুক্ত প্রস্থের ভিতরে আসতে পারবে না।

cholacol 11.png

চিত্র ৬.৪ চলাচলের পথে মুক্ত ভাবে দাঁড়িয়ে থাকা বাধা বা বস্তু

৬.১৮ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের মেঝে থেকে ২০০০ মিলিমিটার (প্রায় ৮০ ইঞ্চি) উচ্চতার মধ্যে অবস্থিত কোনও বস্তু বা বাধা, মেঝে সংলগ্ন দেয়াল বা তল থেকে চলাচলের পথের দিকে সর্বোচ্চ ১০০ মিলিমিটার (প্রায় ৪ ইঞ্চি) দূরত্ব পর্যন্ত বের হয়ে আসতে পারবে। তবে তা কখনোই চলাচলের পথের ন্যূনতম বাধামুক্ত প্রস্থের ভিতরে আসতে পারবে না।

 

৬.১৯ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের মেঝে সংলগ্ন দেয়াল বা তল থেকে চলাচলের পথের দিকে ১০০ মিলিমিটার (প্রায় ৪ ইঞ্চি) এর বেশি দূরত্ব পর্যন্ত বের হয়ে আসা কোনও বস্তুর বা বাধার নিচের প্রান্তটি চলাচলের পথের মেঝে থেকে সর্বোচ্চ ৫৮০ মিলিমিটার (প্রায় ২৩ ইঞ্চি) উচ্চতায় অবস্থান করতে পারবে। তবে বস্তু বা বাধার কোনও অংশই মেঝে থেকে ২০০০ মিলিমিটার (প্রায় ৮০ ইঞ্চি) উচ্চতার মধ্যে চলাচলের পথের ন্যূনতম বাধামুক্ত প্রস্থের ভিতরে আসতে পারবে না।

cholacol 11.png

চিত্র ৬.৫ দেয়াল থেকে পথের দিকে বের হয়ে আসা বাধা বা বস্তু

৬.২০ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথ সংলগ্ন সকল বাধা দানকারী বস্তু পারিপার্শ্বিকের সাপেক্ষে আলাদা করে বোঝা যায় এমন রঙের হবে।

চলাচলের পথে দরজার ব্যবহার

 

৬.২১ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের কোনও অংশে দরজা ব্যবহার করার প্রয়োজন হলে, ব্যবহৃত দরজার অন্তত একটি, সার্বজনীন ব্যবহার উপযোগী হতে হবে। চলাচলের পথের কোথাও টার্নস্টাইল অথবা রিভলভিং জাতীয় দরজা ব্যবহার করলে, তার ঠিক পাশেই একটি সার্বজনীন ব্যবহার উপযোগী দরজা থাকতে হবে।

Asset 32_600x.png

চিত্র ৬.৬ টার্নস্টাইল এর পাশে সার্বজনীন ব্যবহার উপযোগী দরজার ব্যবস্থা

চলাচলের পথের মেঝের ধরণ

 

৬.২২ | সার্বজনীনগম্য চলাচলের পথের মেঝে সমতল, সুষম, দৃঢ়, অপিচ্ছিল, এবং পানি জমতে পারে না এমন হবে।